শিরোনাম
গুলিস্তানে তৈরি হতো ফোন, লেখা ‘মেড ইন চায়না-ফিনল্যান্ড’ বাংলাদেশকে ২৮৫৪ কোটি টাকা ঋণ দিলো বিশ্বব্যাংক ইউক্রেনকে অস্ত্র দেয়া বন্ধ করুন: পশ্চিমা বিশ্বকে ব্রিটিশ রাজনীতিক টাঙ্গাইলে বাবাকে মেরে মসজিদের মাইকে প্রচার, ছেলে আটক খুলনা-মংলা পোর্ট রেলপথ ডিসেম্বরে চালু হবে : রেলপথ মন্ত্রী আয়মান আল-জাওয়াহিরি: আল-কায়েদা নেতা মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন বলে খবর প্রচার বিবিসির আমেরিকাকে সরাসরি রাশিয়ার ‘প্রধান হুমকি’ বলে ঘোষণা দিল মস্কো যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন আমাদের গচ্ছিত অর্থ বিনা শর্তে অবিলম্বে ফেরত দিন: আমেরিকাকে তালেবান ‘ইসরাইল এখন আর লেবাননে আগ্রাসন চালানোর সাহস পায় না’
বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের ওপর বর্বরোচিত হামলার বিচার চেয়েছে নূরুল করীম আকরাম

সাঈদ আবরার / ৩১ পঠিত
প্রকাশের সময় : বুধবার, ২০ এপ্রিল, ২০২২

গতকাল (সোমবার) রাত থেকে শুরু হওয়া ঢাকা কলেজ ও নিউ মার্কেট ব্যবসায়ীদের মাঝে সংগঠিত সংঘর্ষের স্থায়ী অবসান করতে সরকারকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে। পাশাপাশি সাধারণ শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের ওপর বর্বরোচিত হামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

গতকাল ১৯ এপ্রিল ২০২২ মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭.০০ টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিউমার্কেট ট্রাজেডিতে আহত ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের চিকিৎসাসহ সার্বিক খোঁজ খবর নিতে এসে ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম উপর্যুক্ত মন্তব্য করেন।

তিনি আরোও বলেন, ঢাকা কলেজ যেমন বাংলাদেশের সুপ্রাচীন ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ। তেমনই নিউ মার্কেটও ঐতিহাসিক বিপণন কেন্দ্র। উভয় প্রতিষ্ঠানই পরস্পর পরস্পরের কাছাকাছি। সুতরাং উভয়ের মাঝে দূরত্ব ঘুচিয়ে পারস্পরিক সহাবস্থান থাকা অত্যাবশ্যক। কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও ব্যবসায়ীদের বক্তব্য থেকে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে, এখানে ক্ষমতা ও রাজনৈতিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠার লড়াই দৃশ্যমান। যার বলি হচ্ছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। সরকারের সদিচ্ছার অভাবে এই সংকট আরও ঘনীভূত হচ্ছে।

তিনি আরোও বলেন, ঠুনকো ইস্যুকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীদের উপর প্রশাসনের বর্বরোচিত হামলা ও যখন-তখন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা শিক্ষাব্যবস্থা ধ্বংসের নামান্তর। তিনি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, অতিদ্রুত হামলার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় আনতে হবে। অন্যথায় বাংলার ছাত্র সমাজ দুর্বার গণআন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়বে।

কেন্দ্রীয় সভাপতির নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে আরোও ছিলেন ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সেক্রেটারি জেনারেল শেখ মুহাম্মাদ আল-আমিন, জয়েন্ট সেক্রেটারি জেনারেল ইউসুফ আহমাদ মানসুর, কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদক মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা বিভাগীয় উপ-সম্পাদক ইমরান হোসাইন নূর, ঢাকা মহানগর পূর্বের সভাপতি সাব্বির আহমেদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আহসান ফয়েজী, ঢাকা কলেজ শাখার সভাপতি কাউসার আহমেদসহ নগর ও কলেজ দায়িত্বশীলবৃন্দ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ