শিরোনাম
জায়নিস্ট আগ্রাসন : ফিলিস্তিনি যুবককে গুলি করেই গুম করে ফেললো ইসরাইল আশ-শাবাবের দুর্দান্ত সব হামলায় ৩৪ কুফ্ফার সেনা হতাহত মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে জেনে নিন এবারের তাকমীল জামাতের পরীক্ষার রেজাল্ট! ‘ইসলামপ্রিয় নেতৃত্বের ঐক্যবদ্ধ অবস্থানকে ভয় পায় সরকার’ পদ্মা সেতুতে নিয়ে খালেদাকে টুস করে ফেলে দেওয়া উচিত : প্রধানমন্ত্রী দাওরায়ে হাদীস (তাকমীল) পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের তারিখ ঘোষণা ইসলাম ও ইসলামী শিক্ষা নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে: মুফতী ফয়জুল করীম শ্বেতপত্র প্রকাশ করে গণকমিশন সংবিধান বিরোধী অপরাধ করেছে: ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ মাওলানা এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বিরুদ্ধে মামলা চট্টগ্রামে জামায়াতের থানা আমিরসহ ৪৯ নেতাকর্মী গ্রেফতার
বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন

দারসুল হাদীস : দ্বিতীয় পর্ব

সাঈদ আবরার / ৮২ পঠিত
প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২২

আত্ম-উন্নয়নের জন্য চাই আত্মপর্যালোচনা!

حَدَّثَنَا سُفْيَانُ بْنُ وَكِيعٍ، حَدَّثَنَا
عِيسَى بْنُ يُونُسَ، عَنْ أَبِي بَكْرِ بْنِ أَبِي مَرْيَمَ، ح وَحَدَّثَنَا عَبْدُ اللَّهِ بْنُ عَبْدِ الرَّحْمَنِ، أَخْبَرَنَا عَمْرُو بْنُ عَوْنٍ، أَخْبَرَنَا ابْنُ الْمُبَارَكِ، عَنْ أَبِي بَكْرِ بْنِ أَبِي مَرْيَمَ، عَنْ ضَمْرَةَ بْنِ حَبِيبٍ، عَنْ شَدَّادِ بْنِ أَوْسٍ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏”‏ الْكَيِّسُ مَنْ دَانَ نَفْسَهُ وَعَمِلَ لِمَا بَعْدَ الْمَوْتِ وَالْعَاجِزُ مَنْ أَتْبَعَ نَفْسَهُ هَوَاهَا وَتَمَنَّى عَلَى اللَّهِ ‏”‏ ‏.‏ قَالَ هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ ‏.‏ قَالَ وَمَعْنَى قَوْلِهِ ‏”‏ مَنْ دَانَ نَفْسَهُ ‏”‏ ‏.‏ يَقُولُ حَاسَبَ نَفْسَهُ فِي الدُّنْيَا قَبْلَ أَنْ يُحَاسَبَ يَوْمَ الْقِيَامَةِ ‏.‏ وَيُرْوَى عَنْ عُمَرَ بْنِ الْخَطَّابِ قَالَ حَاسِبُوا أَنْفُسَكُمْ قَبْلَ أَنْ تُحَاسَبُوا وَتَزَيَّنُوا لِلْعَرْضِ الأَكْبَرِ وَإِنَّمَا يَخِفُّ الْحِسَابُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ عَلَى مَنْ حَاسَبَ نَفْسَهُ فِي الدُّنْيَا ‏.‏

•হাদীসের সরল অনুবাদ-
হজরত শাদ্দাদ ইবনু আওস (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ সেই ব্যক্তি বুদ্ধিমান যে নিজের নাফসকে নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং মৃত্যুর পরবর্তী সময়ের জন্য কাজ করে। আর সেই ব্যক্তি নির্বোধ ও অক্ষম যে তার নাফসের চাহিদার অনুসরণ করে আর আল্লাহ্ তা’আলার কাছে বৃথা আশা পোষণ করে।

যঈফ, ইবনু মাজাহ (৪২৬০)

আবূ ঈসা বলেন, এ হাদীসটি হাসান। “মান দানা নাফসাহু” বাক্যাংশের তাৎপর্য এই যে, কিয়ামতের দিন আত্মাকে হিসাবের সম্মুখীন করার পূর্বেই যে ব্যক্তি দুনিয়াতে নিজের নাফসের হিসাব-নিকাশ নেয়। উমার ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) বলেন, “হিসাবের সম্মুখীন হওয়ার পূর্বেই তোমরা নিজেদের কৃতকর্মের হিসাব নাও এবং মহা সমাবেশে হাযির হওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে যাও।
যে ব্যক্তি দুনিয়াতে তার হিসাব-নিকাশ নেয়, কিয়ামতের দিন তার হিসাব অত্যন্ত হালকা ও সহজ হবে”।

• রাবী বা বর্ণনাকারীর পরিচয়-

শাদ্দাদ ইবন আউস (রা)

নাম- শাদ্দাদ, কুনিয়াত বা উপনাম- আবু ইয়া’লা আবু আবদির রহমান। মদীনার বিখ্যাত খাযরাজ গোত্রের বনু নাজ্জার শাখার সন্তান। এ গোত্রের বিখ্যাত কবি ’শায়িরুর রাসূল’ ও ’শায়িরুল মানজিরা নামে খ্যাত হযরত হাসসান ইবন সাবিত রাদি. এর ভাতিজা। কবি হাসসান ছিলেন শাদ্দাদের পিতা আউস ইবন সাবিতের ভাই। মাতা সুরাইমা বনু নাজ্জারের আ’দী উপগোত্রের কন্যা।

শাদ্দাদের মুহতারাম পিতা হযরত আউস ইবন সাবিত রাদি. আকাবার শেষ বাইয়াত (শপথ) এবং বদর যুদ্ধে শরীক হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। তিনি উহুদ যুদ্ধে শাহাদাত বরণ করেন।

হযরত শাদ্দাদ ছিলেন একজন সাহাবী এবং একজন আমীর। খলীফা হযরত উমার (রা) তাকে হিমসের আমীর নিয়োগ করেন। তৃতীয় খলীফা হযরত উসমান (রা) শাহাদাত বরণ করলে তিনি সকল দায়িত্ব থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে ইবাদাতে আত্ননিয়োগ করেন। তিনি ছিলেন একজন বিশুদ্ধ ভাষী, ধৈর্যশীল ও বিজ্ঞ ব্যক্তি। মদীনায় ইসলাম প্রচারের প্রথম পর্বেই তাঁর চাচা সহ গোত্রের প্রায় সকলেই ইসলাম গ্রহণ করেন। তিনিও তাঁদের সাথে ঈমান আনেন। যেহেতো যুদ্ধে যাওয়ার বয়স তখনও তাঁর হয়নি, তাই হযরত রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর সাথে কোন যুদ্ধে যাননি বলে জানা যায়। ইমাম বুখারী রহি.এর মতে তিনি গাজওয়ে বদরে শরীক ছিলেন। কিন্তু এটা সঠিক নয় বলে আল্লামা ইবনে আসাকিরসহ অনেকেই মন্তব্য করেছেন।

ইন্তেকাল ও দাফন-
হিজরী ৫৮ সালে ৭৫ বছর বয়সে তিনি ফিলিস্তিনে ইন্তিকাল করেন এবং তাঁকে বাইতুল মাকদাসে দাফন করা হয়।তাবে ক’জন আহলে বাঈতের মতে হিজরী ৬৪ সালে তিনি ইন্তেকাল করেন ।
সূত্র-ইসলাম ওয়েব ডটনেট

• শাব্দিক বিশ্লেষণ-
মুহাসাবা শব্দটি আরবি ‘حساب’ হিসাব শব্দ থেকে এসেছে। হিসাব শব্দটি এসেছে ‘حسب’‘হাসব’ শব্দ থেকে, যার আভিধানিক অর্থ হলো যথেষ্ট, পর্যাপ্ত, যথাযথ ইত্যাদি। ‘মুহাসাবা’ অর্থ হিসাব করা, মূল্যায়ন করা, পর্যালোচনা করা, তুলনামূলক মূল্যায়ন ইত্যাদি। মুহাসাবা শব্দটি ‘ইহতিসাব’-এর সঙ্গে সম্পৃক্ত। ইহতিসাব মানে অনুসন্ধান, সমালোচনা, পরীক্ষা-নিরীক্ষা, যাচাই-বাছাই, মূল্যায়ন, ফলাফল প্রত্যাশা, পুণ্য বা সওয়াবের আশা ও আত্মজিজ্ঞাসা। অর্থাৎ
দিনের শেষভাগে পুরো দিনের যাবতীয় কাজকর্মের ভালো-মন্দের হিসাব নিকাশ করা। মন্দ কাজগুলোর জন্য তাওবা এবং ভালো কাজগুলো নিয়মিত করার জন্য দৃঢ় প্রত্যয় গ্রহণ করাকে আমরা শরীয়তের ভাষায় মুহাসাবা বলতে পারি।

•হাদিস বিশ্লেষণ-
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণিত হাদিস এই নির্দেশ করে যে, পৃথিবীতে যে ব্যক্তি নিজেকে সর্বদা নিয়ন্ত্রণ করে অর্থাৎ প্রতিটি পদক্ষেপে হিসেব-নিকেশ করে। দিনশেষে নিজের সকল ভালো-মন্দের আত্মসমালোচনা করে এবং মৃত্যু-পরবর্তী অনন্তকালীন জীবনের সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করে সেই পৃথিবীতে প্রকৃত জ্ঞানী ও বুদ্ধিমান। আর এসবের ব্যাপারে গাফেল জীবন যাপন করা লোকগুলোই বড় নির্বোধ ও হতভাগা।

তাইতো হাদিস শরিফে আছে, ‘তোমার হিসাব নেওয়ার আগে নিজের হিসাব নিজে করে রাখো।’ (বুখারি ও মুসলিম)। আল্লাহ তাআলা বলেন: اقْتَرَبَ لِلنَّاسِ حِسَابُهُمْ وَهُمْ فِي غَفْلَةٍ مُّعْرِضُونَ
(‘মানুষের হিসাব নিকটে এসে গেছে, তবু তারা উদাসীনতায় মুখ ফিরিয়ে আছে।’ (সুরা-আল আম্বিয়া, আয়াত-০১)। কিয়ামতের দিনে আল্লাহ তাআলা বলবেন: اقْرَأْ كِتَابَكَ كَفَى بِنَفْسِكَ الْيَوْمَ عَلَيْكَ حَسِيبًا

‘তোমার হিসাব-কিতাব [আমলনামা]পাঠ করো; আজ তোমার হিসাবের জন্য তুমি নিজেই যথেষ্ট।’ (সুরা-বনি ইসরাঈল। আয়াত-১৪)

হাদিস শরীফে আরো আছে যে,وَيُرْوَى عَنْ مَيْمُونِ بْنِ مِهْرَانَ قَالَ لاَ يَكُونُ الْعَبْدُ تَقِيًّا حَتَّى يُحَاسِبَ نَفْسَهُ كَمَا يُحَاسِبُ شَرِيكَهُ مِنْ أَيْنَ مَطْعَمُهُ وَمَلْبَسُهُ

মাইমূন ইবনু মিহরান বলেন, কোন ব্যক্তি খাঁটি মুত্তাকী হতে পারবে না যে পর্যন্ত না সে আত্মসমালোচনা করবে। যেমন কোন ব্যক্তি তার শরীকের নিকট হতে পাই টু পাই হিসেব নেয় যে, সে খাদ্যদ্রব্য ও কাপড়-চোপড় কোত্থেকে কত মূল্যে সংগ্রহ করেছে!

অতএব আমাদের আত্মার উন্নয়নের জন্য প্রতিদিন আত্মপর্যালোচনা করা জরুরী। তাহলেই আমলের ঘাটতি পূরণ করার সুযোগ হবে।

• আত্মপর্যালোচনার কিছু উপকারিতা-

১. আত্মপর্যালোচনা ব্যক্তিকে অন্যের সমালোচনা তথা গিবত থেকে বিরত রাখে। গিবত মারাত্মক গুনাহ, যে বিষয়ে পবিত্র কোরআনে এসেছে, ‘তোমরা পরস্পরের গুপ্তচরবৃত্তি ও গিবতকর্মে লিপ্ত হয়ো না। তোমাদের মধ্যে কি কেউ তার মৃত ভাইয়ের গোশত খেতে পছন্দ করে? নিশ্চয় তোমরা তা ঘৃণা করো।’ (সুরা : হুজুরাত, আয়াত : ১২)

২. নিজের দোষত্রুটি নিজের সামনে প্রকাশ করার মাধ্যমে মানুষ স্বীয় ভুলত্রুটি জানতে পারে। ফলে তার হৃদয় ভালো কাজের দিকে আকৃষ্ট হয় এবং মন্দ কাজ থেকে দূরে থাকতে পারে।

৩. আত্মপর্যালোচনার মাধ্যমে মানুষ আল্লাহর নিয়ামতগুলো, অধিকারগুলো জানতে পারে। আর সে যখন আল্লাহর নিয়ামত ও তার অবস্থান সম্পর্কে চিন্তাভাবনা করে, তখন সে আল্লাহর নিয়ামতের শুকরিয়া আদায়ে উদ্বুদ্ধ হয়।
৪. আত্মপর্যালোচনা জীবনের লক্ষ্যকে সব সময় সজীব করে রাখে। এর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অনুভব করতে পারে এই পৃথিবীর বুকে আমাকে অনর্থক সৃষ্টি করা হয়নি। পার্থিব জীবন শুধু খাওয়াদাওয়া, হাসিঠাট্টার নয়। এ জীবনের পরবর্তী যে অনন্ত এক জীবন, তার জন্য যে আমাদের সব সময় প্রস্তুত থাকতে হবে- আত্মপর্যালোচনা সর্বক্ষণ তা স্মরণ করিয়ে দেয়।
৫. আত্মপর্যালোচনা করে এমন ব্যক্তিদের মধ্যে পারিবারিক, সামাজিক, রাষ্ট্রীয় জীবনে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি পায়, যাতে পারস্পরিক সম্পর্ক সুদৃঢ় হয়।

৬. আত্মপর্যালোচনা ব্যক্তিজীবনে সন্দেহপ্রবণতা দূর করে। মূলত সন্দেহপ্রবণতা থেকে পাপাচারের উৎপত্তি। পবিত্র কোরআনে সন্দেহপ্রবণতাকে ‘পাপ’ বলে অভিহিত করা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘হে মুমিনগণ! তোমরা অধিকাংশ (অহেতুক) অনুমান থেকে দূরে থাকো। কারণ (অহেতুক) অনুমান কোনো কোনো ক্ষেত্রে পাপ।’ (সুরা : হুজুরাত, আয়াত : ১২)
৭. আত্মপর্যালোচনা আল্লাহর সঙ্গে বান্দার, ব্যক্তির সঙ্গে ব্যক্তির, মনিবের সঙ্গে দাসের সর্বোপরি মানুষের সঙ্গে মানুষের ইনসাফপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলে।

৮. আত্মপর্যালোচনার মাধ্যমে ব্যক্তি সব ধরনের ক্ষতি, বিপর্যয় কাটিয়ে মহান আল্লাহর অশেষ রহমত লাভ করে। ব্যক্তির জীবনে তখন অকল্পনীয় সফলতা দেখা দেয়।

৯. আত্মপর্যালোচনা ব্যক্তিজীবনে মানবীয় দুর্বলতা প্রতিকার ও স্থবিরতা কাটিয়ে গতিশীলতা ও প্রাণচাঞ্চল্য এনে দেয়।
১০. আত্মপর্যালোচনা ব্যক্তিকে সময় মূল্যায়নের গুরুত্ব বোঝায়। এতে ব্যক্তি যথাসময়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে।

আমাদের সবার উচিত প্রতিদিন ঘুমানোর আগে আত্মপর্যালোচনার মাধ্যমে নিজের আমল ও কর্মের হিসাব করা। মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাওফিক দান করুন (আমিন)।

দারস প্রস্তুতকারী-
সাঈদ আবরার
মুবাল্লীগ ও কওমি মাদরাসা সম্পাদক, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্ব


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ