শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৮:৩৬ অপরাহ্ন

শাল্লায় হেফাজতের (?) হামলা; প্রশ্নগুলোর উত্তর দেওয়া যাবে কি?

/ ৪০১ পঠিত
প্রকাশের সময় : শনিবার, ২০ মার্চ, ২০২১

আসুন একটু হিসাব-নিকাশ করি…..
কেউ পারলে প্রশ্নগুলোর সমাধান দিবেন….!!

১. কটুক্তি করা হয় সোমবার। ঐ ছেলেকে গ্রেফতার করা হয় মঙ্গলবার। এরপর বুধবার হামলা হবে কেন? কটুক্তিকারী গ্রেফতারের পর গ্রামবাসীর উপর হামলা হবে কেন?

২. পত্রিকার বিবরণে এসেছে, হামলার ভয়ে এলাকাবাসী গ্রাম ছেড়ে হাওর এলাকায় গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলো। হামলা হবে এটা কি তারা জানতো? তাহলে হামলা প্রতিরোধের ব্যবস্থা হয়নি কেনো?
৩. হামলাকারীদের অনেক ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় এসেছে। এদের মধ্যে কোনো মাদরাসা ছাত্র বা আলেম উলামা দেখা যাচ্ছে না। সবাই সাধারণ গ্রামবাসী। হলুদ মিডিয়াও এখন পযর্ন্ত দাবি করতে পারেনি এই হামলার সাথে মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষক তথা আলেম উলামারা জড়িত। মাওলানা মামুনুল হক এর উপর কোনো আঘাত এলে তার প্রতিবাদে প্রথম নামার কথা তার দল ও হেফাজত কর্মীদের। কিন্তু হামলাকরীদের মধ্যে কোনো হেফাজত কর্মী নাই কেনো?

৩. সংবাদ মাধ্যমে হামলাকে খুব বড় করে দেখানোর চেষ্টা চলছে। কোথাও লিখেছে ৩০ হাজার মানুষ হামলায় অংশ নিয়েছে। কয়েকশ বাড়ি ভাংচুর হয়েছে। নারী নির্যাতন হয়েছে। এত মানুষ হামলা করলো, কেউ আহত হলো না কেন? অসংখ্য মানুষ আহত ও নিহত হওয়ার কথা। কোথাও তো আহতদের সংখ্যা দেখলাম না। আসলেও কি এটা বড় কিছু ছিলো? না মিডিয়াবাজির মাধ্যমে বড় করার চেষ্টা হচ্ছে?

৪. মিডিয়ার আচরণ শুরু থেকেই সন্দেহজনক। প্রথম থেকে তারা এর দায় চাপিয়ে দিলো হেফাজতের উপর। অথচ ছবি ও ভিডিও ফুটেজ বলছে সেখানে হেফাজতের কেউ নেই। সব সাধারণ গ্রামবাসী। কালের কন্ঠের এক নিউজে দেখলাম, সেখানে নাকি মুক্তিযুদ্ধাদের খুঁজে খুঁজে হামলা করা হয়েছে। অবশেষে এখানেও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ঢুকাতে হবে? আর কিছু এরা বাকি রাখবে না?

৫, এতবড় হামলার একটা ভিডিও দেখা গেলনা কেনো? নাকি ওখানে কোন এন্ড্রয়েড ফোন নেই? কেউ ভিডিও করেনি? নাকি অন্য কোন রহস্য এখানে রয়েছে? আরেকটি ভিডিওতে পেলাম যে এর পেছনের নেতৃত্বে কিছু নাস্তিক ছিল।

৬, এ ধরনের ঘটনাগুলোতে অন্তত নিশ্চিত প্রমাণ না থাকলে ‘ধর্মীয় উস্কানী’ তে হয়েছে এটা বলা সেন্সিবল পর্যায়ে পড়ে না। ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিকরা ও এটাকে ধর্মীয় উস্কানী বলছে। এটা তাদের স্বভাবগত নিয়ম। তাদেরকে দিয়ে মূলত এ ধরনের প্রপাগান্ডা প্রমোট করা করা হয়। কথা হল গুজরাটের কসাই মোদী সফরে আসার ঠিক আগেই এমন কাণ্ড কারা কি উদ্দেশ্যে করতে পারে?

৭, সাধারণ মুসলিম গ্রামবাসীর অপকর্মের দায়িত্ব কি শুধুমাত্র সেই গ্রামের জনপ্রতিনিধির উপর বর্তায় না?

আওয়ামীলীগ সরকার যেটা করছে তা হলো এক পক্ষকে (হিন্দুদের) প্রায়োরিটি দিয়ে অপর পক্ষকে (মুসলিমদের) ক্ষেপিয়ে তোলা। ফলত এলিট হিন্দুরা প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ন সব পদ দখল করে জালিম হচ্ছে। আর প্রান্তীয় নিম্নবিত্ত হিন্দুদের দাঙ্গা নাটকের গিনিপিগ বানিয়ে ফায়দাও লুটছে।

সময় তো অনেক গড়ালো…..এখনও যদি সচেতন না হই….আর কবে??


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ