শিরোনাম
জায়নিস্ট আগ্রাসন : ফিলিস্তিনি যুবককে গুলি করেই গুম করে ফেললো ইসরাইল আশ-শাবাবের দুর্দান্ত সব হামলায় ৩৪ কুফ্ফার সেনা হতাহত মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে জেনে নিন এবারের তাকমীল জামাতের পরীক্ষার রেজাল্ট! ‘ইসলামপ্রিয় নেতৃত্বের ঐক্যবদ্ধ অবস্থানকে ভয় পায় সরকার’ পদ্মা সেতুতে নিয়ে খালেদাকে টুস করে ফেলে দেওয়া উচিত : প্রধানমন্ত্রী দাওরায়ে হাদীস (তাকমীল) পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের তারিখ ঘোষণা ইসলাম ও ইসলামী শিক্ষা নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে: মুফতী ফয়জুল করীম শ্বেতপত্র প্রকাশ করে গণকমিশন সংবিধান বিরোধী অপরাধ করেছে: ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ মাওলানা এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বিরুদ্ধে মামলা চট্টগ্রামে জামায়াতের থানা আমিরসহ ৪৯ নেতাকর্মী গ্রেফতার
বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৬:০২ অপরাহ্ন

এক তরুণীসহ ৪ ‘টিকটকার’কে গুলি করে হত্যা!

/ ২৫২ পঠিত
প্রকাশের সময় : বুধবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

আবারও খবরের শিরোনামে এলো ভিডিও শেয়ারিংয়ের অ্যাপ ‘টিকটক’। পাকিস্তানে এক তরুণীসহ চার টিকটকারকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। দেশটির শীর্ষ গণমাধ্যম ‘ডন’ জানিয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার ভোরে করাচির গার্ডেন এলাকায় আংক্লেসারিয়া হাসপাতালের কাছে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। নিহত চারজনই টিকটক ভিডিও তৈরি করতেন এবং সোশ্যাল সাইটে বেশ সক্রিয় থাকতেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সিটি সিনিয়র সুপারিনটেনডেন্ট অব পুলিশ সরফরাজ নওয়াজ শেখের বরাত দিয়ে ‘ডন’ জানিয়েছে, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে দুজনকে শনাক্ত করা গেছে। তাঁরা হলেন মুসকান ও আমির। গতকাল রাতে তরুণী মুসকান ফোন করে তার বন্ধু আমিরকে দেখা করতে বলেন। আমির একটি গাড়ি জোগাড় করে বান্ধবীর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার সময় রেহান ও সাজ্জাদকে নিয়ে যান। চারজনই রাতে শহরে ঘুরে বেড়ান এবং সে সময় আমির ও মুসকান টিকটক ভিডিও তৈরি করেন।
পুলিশ আরও জানিয়েছে, ভোর পাঁচটার দিকে আংক্লেসারিয়া হাসপাতালের কাছে তাদের ওপর অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিরা হামলা চালায়। চারজনের মাঝে মুসকানকে গাড়ির ভেতরেই গুলি করা হয়। বাকি তিনজনকে গাড়ির বাইরে গুলি করে মারে দুর্বৃত্তরা। গোলাগুলি থামলে চারজনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। তবে এর আগেই তাদের মৃত্যু হয়েছিল। নিহতদের গাড়ির কাছে নাইনএমএম পিস্তলের গুলির খোসা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছ পুলিশ।

সরফরাজ নওয়াজ শেখ জানান, এর আগে রেহান ও সাজ্জাদ ইতিহাদ টাউন এলাকায় ফাঁকা গুলি ছুড়ে টিকটক ভিডিও তৈরি করেছিল। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই ভিডিও ভাইরাল হলে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে। এর মাঝেই এমন হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটল। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে যে, ব্যক্তিগত শত্রুতা থেকেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। হত্যাকারীদের ধরতে মাঠে নেমেছে পুলিশ। প্রকাশ্যে ঘটনা ঘটলেও কোনো প্রত্যক্ষদর্শী পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ