শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৯:০২ অপরাহ্ন

‘যোগী আদিত্যনাথের সংবিধান সম্পর্কে কোনও ধারণা নেই, ‘লাভ জিহাদ’ ইস্যুতে তীব্র কটাক্ষ করলেন ওয়াইসি

/ ৩৪৪ পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৩ নভেম্বর, ২০২০

মিডিয়া ডেস্ক : উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ কথিত লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে আইন করার কথা বলায় এবং ওই ইস্যুতে বিতর্কিত মন্তব্য করায় ভারতের মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদ উদ্দিন ওয়াইসি এমপি বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রীর সংবিধান সম্পর্কে কোনও ধারণা নেই। আজ (সোমবার) তাঁর ওই মন্তব্য প্রকাশ্যে এসেছে।

পূর্ব উত্তর প্রদেশের জৌনপুরে উপ-নির্বাচন উপলক্ষে গত (শনিবার) আজ  অনুষ্ঠিত সমাবেশে যোগী আদিত্যনাথ বলেন, তাঁর সরকার ‘লাভ জিহাদ’ বন্ধে কঠোর ও কার্যকর আইন তৈরি করবে। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘যারা ছদ্মবেশে, লুকিয়ে, নাম গোপন করে, পরিচিতি গোপন করে বোন-কন্যাদের সম্মান নিয়ে ছিনিমিনি খেলে, তারা সংশোধন না হলে এবার ‘রাম নাম সত্য হ্যায়’ যাত্রা বেরোতে চলেছে।’     

মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এভাবে নির্বাচনী সমাবেশে কথিত ‘লাভ জিহাদ’-এর বিরুদ্ধে হিন্দুদের শবযাত্রার সময়ে ব্যবহৃত ধ্বনি ব্যবহার করে হুঁশিয়ারি দেন। ভারতে বিহার, উত্তর প্রদেশ, মধ্য প্রদেশের মত বিভিন্ন রাজ্যে হিন্দুদের লাশ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার সময়ে ‘রাম নাম সত্য হ্যায়’  ধ্বনি দেওয়া হয়। কোনও মুসলিম যুবক যদি কোনও হিন্দু মেয়েকে প্রেমের সম্পর্কের মধ্যদিয়ে বিয়ে করে, তবে তাকে ‘লাভ জিহাদ’ বলে মনে করে ময়দান উত্তপ্ত করে থাকে উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা।  

এ প্রসঙ্গে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক ও শিশু সাহিত্যিক মুহাম্মাদ নুরুদ্দিন আজ (সোমবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘লাভ জিহাদ নিয়ে হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক সংগঠনগুলো পরিবেশকে উত্তপ্ত করার চেষ্টা করছে। আমাদের দেশে এটিকে পরিকল্পিতভাবে এটাকে রাজনৈতিক ইস্যু তৈরি করা হয়েছে। ‘লাভ’-এর সঙ্গে ‘জিহাদ’-এর কোনও সম্পর্ক নেই।

এটা সম্পূর্ণ বানানো, মিথ্যা ও প্রতারণাপূর্ণ কথা। প্রকৃতপক্ষে জিহাদ কথার অর্থ হচ্ছে সৎ পথে সংগ্রাম করা। মানুষকে সততার দিকে, ন্যায়ের দিকে আহ্বানের মধ্যদিয়ে সুবিচার প্রতিষ্ঠা করার নাম জিহাদ। এর সঙ্গে বিয়ের সম্পর্ক, প্রেমের সম্পর্ক জুড়ে দিয়ে মুসলিম সম্প্রদায়কে দোষারোপ করে তাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করে রাজনৈতিক বিভাজন সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে।’   

মুহাম্মাদ নুরুদ্দিন আরও বলেন, ‘দেশে যখন নির্বাচন আসে, বিশেষ করে বিহারে এখন নির্বাচন চলছে। অন্যত্র উপ-নির্বাচন হতে যাচ্ছে। কিন্তু কিছু রাজনৈতিক দল মানুষের কর্মসংস্থান, খাদ্য সঙ্কট ইত্যাদি ইস্যু এড়িয়ে তারা এধরণের অপ্রাসঙ্গিক ও অযৌক্তিক কথাগুলো সামনে আনার চেষ্টা করে  মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। আমরা মনে করি জনগণ এধরণের বিভ্রান্তকর চিন্তা যারা করে তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করবে এবং প্রকৃত সত্য বিজয় লাভ করবে।’  

বিহারে বিধানসভা নির্বাচন উপলক্ষে গতকাল (রোববার) বিহারে এক নির্বাচনী সমাবেশে কথিত ‘লাভ জিহাদ’ ইস্যুতে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সমালোচনা করে ‘মিম’ প্রধান ব্যাসিস্টার আসাদ উদ্দিন  ওয়াইসি বলেন, ‘সংবিধানের ২১ অনুচ্ছেদে কী বলা হয়েছে, যোগী আদিত্যনাথ তা পড়ুন এবং পড়ে দেশবাসীকে জানান। বিজেপি-আরএসএস দেশের মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ উসকে দিচ্ছে। বিজেপি-আরএসএস পরিকল্পিতভাবে মুসলিমদের বিরুদ্ধে কিছু না কিছু বলতেই থাকে। যাতে  মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ উসকে দেয়।’  

তিনি বলেন, ‘ওরা করোনা পরিস্থিতি চলাকালীন ‘তাবলিগী জিহাদ’ বলেছিল, আদালত তাকে মিথ্যা বলেছে। পরবর্তীতে ইউপিএসসি জিহাদ বলেছে। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট সত্যিটা কী তা জানিয়ে দিয়েছে।’ এবার ‘লাভ জিহাদ’-এর কথা বলছেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। কিন্তু উনি সংবিধান নামের বিষয়টি কী তা বোঝেন না বা জানেন না। ওনাদের বুঝতে হবে সংবিধানের ২১ অনুচ্ছেদ কী? সেটা পড়ে নিন। যদি তারা পড়তে না জানেন তবে কোনও জ্ঞানী, সাংবিধানিক আইনজীবীর কাছ থেকে পড়ে নিন। তাছাড়া স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্ট কী দেখুন।’

‘আসলে ওঁরা নিজেদের ব্যর্থতাগুলোকে আড়াল করতে চাচ্ছেন। বিহারে ওঁদের ডাল গলছে না সেজন্য বিদ্বেষ ছাড়াতে চাচ্ছে’ বলেও (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদ উদ্দিন ওয়াইসি এমপি মন্তব্য করেন।

সূত্র : পার্সটুডে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ