শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১০:০০ অপরাহ্ন

যমুনায় পানি বেড়েছে, ভাঙন আতঙ্কও বেড়েছে !

/ ৩৩৪ পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৩ জুন, ২০২০

আওয়ার মিডিয়া : পাহাড়ি ঢল ও টানা বৃষ্টিতে বগুড়ার ধুনট উপজেলায় যমুনা নদীর পানি আরো বেড়েছে। গতকাল দুপুর থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় শহড়াবাড়ী ঘাট পয়েন্টে পানি বেড়েছে ১৩ সেন্টিমিটার। যমুনা নদীর পানি বেড়েছে সিরাজগঞ্জ পয়েন্টেও।

সিলেটে কুশিয়ারা নদীর পানি কিছুটা কমেছে। তবে তা এখনো বিপৎসীমার কাছাকাছি রয়েছে। তিস্তায় পানি কমায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে নীলফামারীতে।

এদিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় নদীভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে শেরপুরের নকলা উপজেলার কয়েক হাজার পরিবার। 
জেলার ধুনট উপজেলার ভাণ্ডারবাড়ী ইউনিয়নের শহড়াবাড়ী ঘাট পয়েন্টে পানি বাড়লেও গতকাল তা বিপৎসীমার ৭৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

তবে পানি বাড়তে থাকায় বন্যার আশঙ্কা করছে নদীতীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা। বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপসহকারী প্রকৌশলী আসাদুল হক জানান, যমুনার পানি যেভাবে বাড়ছে, তাতে বিপত্সীমা অতিক্রম করে বন্যা হতে পারে।

এদিকে ভাণ্ডারবাড়ী ইউনিয়নের বৈশাখী, রাধানগর, নিউ সারিয়াকান্দি, শহড়াবাড়ী, পুকুরিয়া, কৈয়াগাড়ী, বরইতলী, বানিয়াজান ও শিমুলবাড়ী চরের আউশ ধান ও পাটের জমিতে পানি প্রবেশ করছে। নদীর পূর্বতীরে চর এলাকার ফসলিজমিতেও একই অবস্থা।

গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে ১০ সেন্টিমিটার বেড়েছে। তবে গতকাল বিকেলে তা বিপত্সীমার ৬১ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, গতকাল বিকেলে সিরাজগঞ্জ হার্ড পয়েন্টে যমুনার পানি ১২ দশমিক ৭৪ মিটার রেকর্ড করা হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে ১০ সেন্টিমিটার।
পানি বাড়ায় তলিয়ে গেছে নিম্নাঞ্চলের শত শত একর ফসলি জমি। পাঁচটি উপজেলার প্রায় ২০টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল এরই মধ্যে প্লাবিত হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ