শিরোনাম
আল্লামা শফীর ১৩ দফা বাস্তবায়নে পুনরায় সক্রিয় হচ্ছে হেফাজত সরকারবিরোধী আন্দোলন : বিএনপি নেতাকর্মীরা চাঙা তিন কারণে নারায়ণগঞ্জে আবারো গলাকাটা লাশ উদ্ধার গুলিস্তানে তৈরি হতো ফোন, লেখা ‘মেড ইন চায়না-ফিনল্যান্ড’ বাংলাদেশকে ২৮৫৪ কোটি টাকা ঋণ দিলো বিশ্বব্যাংক ইউক্রেনকে অস্ত্র দেয়া বন্ধ করুন: পশ্চিমা বিশ্বকে ব্রিটিশ রাজনীতিক টাঙ্গাইলে বাবাকে মেরে মসজিদের মাইকে প্রচার, ছেলে আটক খুলনা-মংলা পোর্ট রেলপথ ডিসেম্বরে চালু হবে : রেলপথ মন্ত্রী আয়মান আল-জাওয়াহিরি: আল-কায়েদা নেতা মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন বলে খবর প্রচার বিবিসির আমেরিকাকে সরাসরি রাশিয়ার ‘প্রধান হুমকি’ বলে ঘোষণা দিল মস্কো
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০২:৪৪ অপরাহ্ন

করোনায় এ—( A ) গ্রুপের রক্তে ঝুঁকি ৫০% বেশি, আছে জিনগত কারণ!

/ ৩৫০ পঠিত
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৫ জুন, ২০২০

মিডিয়া ডেস্ক : এক গবেষণায় দেখা গেছে- করোনাভাইরাসে গুরুতর আক্রান্ত এবং রক্তের গ্রুপ ‘এ’-এর মধ্যে নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। এমনকি অন্তত ছয় শতাংশ মানুষের জিনগতভাবেই রক্তের গ্রুপ দুর্বল প্রকৃতির।

এর আগে সর্বপ্রথম চীনের বিজ্ঞানীরা জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে যারা সবচেয়ে বেশি গুরুতর অবস্থায় পড়ছেন, তাদের বেশিরভাগেরই রক্তের গ্রুপ ‘এ’।

বর্তমানে জার্মানির কিয়েল ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক বলেছেন, তারা দেখেছেন- জিনগত কিছু বৈশিষ্ট্যের মিল থাকা এবং রক্তের গ্রুপ এ যাদের, তারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে গুরুতর অবস্থায় পড়ছেন।

অন্যদের তুলনায় এ গ্রুপের রক্তের রোগীদের ক্ষেত্রে অক্সিজেন কিংবা লাইফ সাপোর্ট প্রয়োজন হওয়ার হার ৫০ শতাংশ বেশি। এমনকি করোনায় মৃত্যুর দিক দিয়েও এ গ্রুপের রক্ত এবং জিনগতভাবে দুর্বল সেই ছয় শতাংশ ব্যক্তির সংখ্যা বেশি।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন হাসপাতালের দেওয়া তথ্যানুসারে, সে দেশে করোনায় মৃতদের মধ্যে ৪০ শতাংশই তরুণ। ২০, ৩০, ৪০ ও ৫০ বছরের মধ্যে তাদের বয়স।
সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) জানিয়েছে, ৩০ মের মধ্যে হাসপাতালে যাদের ভর্তি করতে হয়েছে, তাদের মধ্যে ৩০ শতাংশের বয়স ১৮ থেকে ৪৯ বছরের মধ্যে।

এই বয়সে করোনা আক্রান্ত হয়ে গুরুতর হয়ে যাওয়ার ব্যাপারে গবেষণা করছেন বিজ্ঞানিরা। বিজ্ঞানিদের সন্দেহ, এর কারণ হতে পারে জিনগত ব্যাপার। 

এজন্য  জার্মানির কিয়েল ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক ইতালির করোনায় গুরুতর রোগীদের নমুনা সংগ্রহ করেছেন। অন্তত ১৬১০ জন রোগীর নুমানা নিয়ে তারা কাজ করছেন।

সূত্র : ডেইলি মেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ